img

Follow us on

Monday, Jul 15, 2024

Sukanta Majumdar: ইডির বিরুদ্ধে শাহি দরবারে নালিশ জানাতে চলেছেন সুকান্ত! কেন জানেন?

"আপনারাই তথ্য গোপন করেছেন বলে আমার এখন সন্দেহ হচ্ছে..."

img

সুকান্ত মজুমদার। ফাইল ছবি।

  2023-09-26 17:05:17

মাধ্যম নিউজ ডেস্ক: “অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের তদন্ত প্রক্রিয়ার সঙ্গে ইডির যে সব কেন্দ্রীয় তদন্তকারী অফিসার যুক্ত তাঁরা কেউ ২০১৪ সালের পরে জন্মাননি। কিংবা ২০১৪ সালের পর চাকরিতেও যোগ দেননি। বিচারপতির এই পর্যবেক্ষণ আমরা কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের পাশাপাশি কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকেও জানাব।” মঙ্গলবার কথাগুলি বললেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি অধ্যাপক-নেতা সুকান্ত মজুমদার (Sukanta Majumdar)।

আদালতের কাছে আবেদন সুকান্তর

তিনি বলেন, “আমরা আদালতের কাছে আবেদন করব যদি কোনও তদন্তকারী ইডি অফিসারের বিরুদ্ধে তাদের কোনও সন্দেহ হয়, তাহলে তারা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিক। কংগ্রেস আমলের কোনও তদন্তকারী অফিসার অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে আড়াল করার চেষ্টা করতেই পারেন। কিন্তু তদন্ত প্রক্রিয়ার ক্ষেত্রে আমাদের সরকার কাউকে বাঁচানোর চেষ্টা করবে না। বিএসএফের একজন অফিসারকেও গ্রেফতার হতে হয়েছে।”

অসন্তোষ বিচারপতি সিনহার 

প্রসঙ্গত, তৃণমূল সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ইস্যুতে সোমবার অসন্তোষ প্রকাশ করেন কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি অমৃতা সিনহা। অভিষেকের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট, বীমা ও সম্পত্তির বিস্তারিত তথ্য আদালতকে জানিয়েছিল ইডি। সেই (Sukanta Majumdar) রিপোর্টের ভিত্তিতে বিচারপতি সিনহার প্রশ্ন, আপনারা (ইডি) জানিয়েছেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের তিনটি বীমা রয়েছে। আর কোনও সম্পত্তি নেই? ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট নেই? তিনি সাংসদ, অথচ তাঁর কোনও ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট নেই? তাঁর বেতন কোন অ্যাকাউন্টে যায়? ইডির তরফে জানানো হয় অভিষেকের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট রয়েছে। এর পর বিচারপতি সিনহার পাল্টা প্রশ্ন, তার উল্লেখ করেননি কেন? আপনারা কী পোস্ট অফিস? আপনারাই তথ্য গোপন করেছেন বলে আমার এখন সন্দেহ হচ্ছে।

আরও পড়ুুন: “ট্রুডো মিথ্যা কথা বলেন”, কানাডার প্রধানমন্ত্রীকে তোপ শ্রীলঙ্কার

প্রসঙ্গত, এর আগে ইডি এবং সিবিআইয়ের তদন্ত নিয়ে (Sukanta Majumdar) অসন্তোষ প্রকাশ করেছিলেন কলকাতা হাইকোর্টেরই বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়। এদিকে, তদন্তের গতি স্তব্ধ করে দেওয়ার চেষ্টা চলছে বলে অভিযোগ ইডির। বৃহস্পতিবার আদালতে ইডির দাবি, “অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ‘লিপস অ্যান্ড বাউন্ডসে’র সিইও আছেন জানানোর পর থেকেই শুরু হয়েছে হয়রানি। আমাদের বলতে বাধা নেই যে সাংবিধানিক পদে থাকা ব্যক্তিদের নির্দেশে এসব হচ্ছে।” ইডির অভিযোগ, “বারবার এই নিয়োগ দুর্নীতির তদন্ত বন্ধ করে দেওয়ার চেষ্টা হচ্ছে। তদন্তের গতি স্তব্ধ করার চেষ্টা চলছে। পুলিশকে দিয়ে এই কাজ করানো হচ্ছে। নেপথ্যে হাত রয়েছে প্রভাবশালীদের।”

 

দেশের খবরদশের খবরসব খবরসবার আগে পেতে ফলো করুন আমাদের FacebookTwitter এবং Google News পেজ।

 
 

Tags:

Calcutta High court

Sukanta Majumdar

bangla news

Bengali news


আরও খবর


ছবিতে খবর