img

Follow us on

Thursday, Jul 25, 2024

Inspiring Story: দুর্ঘটনার জেরে পঙ্গুপ্রায়, দশ শতাংশ ছিল বাঁচার সম্ভাবনা, এখন ডাক্তার হয়ে অন্যকে বাঁচান

Sakshi Maheshwari: ভয়ঙ্কর দুর্ঘটনা, বার কুড়ি অস্ত্রোপচার, হার না মানা সাক্ষী কীভাবে হলেন ডাক্তার, জানুন

img

বাবা মায়ের সঙ্গে সাক্ষী (সংগৃহীত ছবি)

  2024-07-09 08:48:19

মাধ্যম নিউজ ডেস্ক: আহমেদাবাদে ২৭ বছর বয়সি হাড়ের ডাক্তার সাক্ষী মাহেশ্বরী, আজ এক প্রেরণার (Inspiring Story) নাম। যাঁরা প্রতি মুহূর্তে সংঘর্ষ করছেন তাঁদের রোল মডেল হতে পারেন সাক্ষী। দুর্ঘটনায় পঙ্গুপ্রায় হয়েছিলেন, কুড়ি বার অস্ত্রোপচার করা হয় তাঁর শরীরে, একটা সময় নিজেও আশা হারিয়ে ফেলছিলেন তিনি। তবে মনের জোর অটুট রেখে শেষমেষ হাড়ের ডাক্তারই হয়ে উঠলেন সাক্ষী!

সাত বছর আগের দুর্ঘটনা

সাত বছর আগে দুর্ঘটনার মুখে পড়েন (Inspiring Story) সাক্ষী, তখন তিনি এমবিবিএসের দ্বিতীয় বর্ষের পড়ুয়া। আর পাঁচটা দিনের মতো দুর্ঘটনার দিনও আহমেদাবাদে নিজেদের বাড়িতে বসে দৈনিক কাজকর্ম সারছিলেন সাক্ষীর বাবা দীনেশ এবং মা স্নেহা। মেয়ের দুর্ঘটনার কথা জানিয়ে হঠাৎই ফোন আসে তাঁদের কাছে। তড়িঘড়ি ফোন পেয়ে তাঁরা ছুটে যান কর্নাটকে। সেখানেই হয়েছিল দুর্ঘটনা। মেয়েকে দেখে হতবাক হয়ে যান তাঁরা। দুর্ঘটনায় বুকে, মাথায়, হাতে, পায়ে গুরুতর চোট। সাক্ষী (Sakshi Maheshwari) ২০ দিন ছিলেন আইসিইউতে। পর পর অস্ত্রোপচার হয়েছিল শরীরের বিভিন্ন অংশে। সেই সংখ্যাটা প্রায় ২০। এর পাশাপাশি অস্ত্রোপচারের পর ছ’মাস ধরে চলেছিল চিকিৎসা। সাক্ষীর পরিবার জানিয়েছে, দু’বছর ধরে টানা ফিজিয়োথেরাপি করানো হয়েছিল। সাক্ষীর পরিবার এখনও ভুলতে পারেননি দিনগুলি।

হাসপাতাল ফেরত সাক্ষীর লড়াই (Inspiring Story)

সাক্ষী (Sakshi Maheshwari) জানিয়েছেন, হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাওয়ার পরেই শুরু হয়েছিল আসল লড়াই। তিনি জানিয়েছেন, নিজে ডাক্তারির ছাত্রী হয়েও শরীরের চোট-আঘাতের দিকে তাকাতে পারতেন না। দুর্ঘটনা প্রাণ কেড়ে নিতে বসেছিল তাঁর। চিকিৎসকেরাও জানিয়েছিলেন ভাল হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে মাত্র ১০ শতাংশ। শুধু নিজের জেদকে সম্বল করে ২৭ বছরের সাক্ষী আজ হাড়ের ডাক্তার হয়েছেন। হাসপাতাল থেকে ছাড় পাওয়ার পর অর্ধেক যুদ্ধ জিতে যান সাক্ষী। তবে বাকি যুদ্ধ এখনও তাঁর জন্য অপেক্ষা করছিল। সাক্ষী মাহেশ্বরীর নিজের ভাষায়, ‘‘আমি তখন ছিলাম একজন ডাক্তারি পড়ুয়া। যে গুরুতর আঘাত আমি পেয়েছিলাম তা দীর্ঘ সমস্যার সৃষ্টি করবে এটা জানতাম। এর পাশাপাশি আমি জানতাম যে ভবিষ্যতে চলার পথটাও খুব কঠিন হতে চলেছে।’’ বর্তমানে হাসপাতালে যখন দুর্ঘটনায় আক্রান্ত রোগীরা আসেন, তখন সাক্ষী তাঁদের মধ্যে নিজের অতীতকে খুঁজে পান, এমনটাই জানিয়েছেন তিনি। তাঁর মতে,  সব সময় মাথার মধ্যে ঘুরত একটাই প্রশ্ন, ‘‘কোনও দিন কি স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারব?’’ প্রতি বারই প্রশ্নের জবাব দিতেন নিজেই। নিজেকে বলতেন, ‘‘আমাকে পারতেই হবে (Inspiring Story)।’’ পাশে ছিলেন মা, বাবা, দাদু, দিদা।

বাবা আমাকে দৈনন্দিন কাজে ছোট ছোট লক্ষ্য বেঁধে দিতেন

সাক্ষী (Sakshi Maheshwari) বলেন, ‘‘কঠিন দিনগুলিতে সবার কাছ থেকেই সাহায্য পেয়েছি। বাবা আমাকে দৈনন্দিন কাজে ছোট ছোট লক্ষ্য বেঁধে দিতেন। আমি সেগুলো পূরণ করার চেষ্টা করতাম।’’ বেশ কয়েকদিন শয্যাশায়ী থাকার পরে সাক্ষী ওয়াকারে করে হাঁটাচলা শুরু করেন। তিনি নিজেই জানিয়েছেন, প্রথমে তাঁর হাঁটতে খুবই অসুবিধা হত। তিনি কেবলমাত্র ঘর থেকে বের হতে পারতেন, আবার বিছানায় চলে আসতেন প্রায় সঙ্গে সঙ্গে। কিন্তু এমন সময়ে তাঁর বাবা ছোট ছোট লক্ষ্য বেঁধে দিতে থাকেন। লক্ষ্যপূরণের জন্য প্রতিদিন পাঁচটি করে বেশি পা ফেলতে থাকেন সাক্ষী ঘরে ঢোকার আগে। এভাবেই সেরে উঠছিলেন তিনি। পিতার কাছ থেকে পাওয়া এমন প্রেরণা তাঁকে সুস্থ হতে সাহায্য করেছে বলে মনে করেন (Inspiring Story) সাক্ষী।

সাক্ষীর মা কী বলছেন?

সাক্ষীর মা স্নেহা বলেন, ‘‘ওকে অত কষ্টের মধ্যে দেখে আমরাও ভেঙে পড়তাম প্রায়ই। প্রত্যেকটা দিনই ওর কাছে নতুন চ্যালেঞ্জ ছিল।’’ এই অবস্থায় সাক্ষী জেদ ধরেন, ডাক্তারি পড়া তিনি চালিয়ে যাবেন যেকোনও মূল্যে। আত্মীয়-স্বজন, অধ্যাপক, সহপাঠী, বন্ধুরা বুঝিয়েছিলেন অনেক। তাঁদের মনে হয়েছিল, সাক্ষীর শরীরে যা অবস্থা, তাতে তিনি পড়ার চাপ সামলাতে পারবেন না। কিন্তু সাক্ষী ছিলেন নাছোড়বান্দা।

স্নাতকোত্তরে ভর্তির দিন বোন কেটেছিলেন কেক

দুর্ঘটনার পরেই সাক্ষী সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেন, ডাক্তারি পড়া চালিয়ে যাবেন এবং স্নাতকোত্তরে অর্থোপেডিক নিয়েই পড়াশোনা করবেন। যে দিন আহমেদাবাদের বিজে হাসপাতালে অর্থোপেডিক বিভাগে স্নাতকোত্তর পড়ার জন্য ভর্তি হয়েছিলেন সাক্ষী, সে দিন তাঁর বোন ইশা কেক কেটেছিলেন। ইশা বলেন, ‘‘আমি মনে করতে পারি সেই দিনটির কথা যেদিন আমার দিদি আহমেদাবাদের ডিজে মেডিকেল কলেজে অর্থপেডিক ডিপার্টমেন্টে ভর্তি হয়। সেদিন আমরা বাড়িতে উৎসব শুরু করি এবং কেক কাটি।’’

সাক্ষীকে স্যালুট ছোট বোনের

ইশা মাহেশ্বরী আরও বলেন, ‘‘দিদি আমার আদর্শ। খুব কম বোনেরই এমন সুযোগ থাকে নিজের দিদিকে বেড়ে উঠতে দেখার। আমি তাঁকে স্যালুট জানাই। তাঁর ইচ্ছা শক্তিকে স্যালুট জানাই। আমার জীবনের প্রধান চরিত্রই সাক্ষী।’’ ইশা আরও জানিয়েছেন, যে দিন সাক্ষী দুর্ঘটনার পর প্রথম বার নিজের দাঁত মাজতে পেরেছিলেন, পরিবারের সকলে নাচ-গান, হুল্লোড় করেছিলেন। সাক্ষী জানিয়েছেন, সে দিন সেই দুর্ঘটনা না হলে হয়ত রোগীদের প্রতি এতটা সমব্যথী হতে পারতেন না তিনি। তাঁদের কষ্টটা বুঝতে পারতেন না।

যাঁরা সংঘর্ষ করছেন তাঁদের উদ্দেশ্যে সাক্ষীর বার্তা

সাক্ষীর এমন গল্প অনেকের কাছেই প্রেরণা হতে পারে। যাঁরা সংঘর্ষ করছেন তাঁদের উদ্দেশে সাক্ষীর বার্তা, ‘‘কখনও আশা ছাড়বেন না। যা কিছু সংস্থান আছে সব ব্যবহার করতে থাকুন। সাফল্য মিলবেই।’’ সাক্ষী এও জানিয়েছেন, দুর্ঘটনার পরে শয্যাশায়ী অবস্থায় তিনি হাত নাড়াতে পারতেন না। তাই বর্তমানে যখন তিনি কোনও সমস্যায় পড়েন তখন নিজের হাতের দিকে তাকিয়ে থাকেন এবং সেগুলোর প্রশংসা করেন। ভাবেন কীভাবে তাঁর হাত স্বপ্ন পূরণ করতে সাহায্য করেছে।

 

দেশের খবর, দশের খবর, সব খবর, সবার আগে পেতে ফলো করুন আমাদের  Whatsapp, FacebookTwitter, Telegram এবং Google News পেজ।

Tags:

Madhyom

bangla news

Bengali news

Inspiring Story

Sakshi Maheshwari


আরও খবর


খবরের মুভি


ছবিতে খবর