img

Follow us on

Monday, Jun 17, 2024

Lord Kartikeya: দক্ষিণ ভারতে কার্তিকের মন্দিরের কাছাকাছি শিবের মন্দির দেখা যায় কেন?

কার্তিককে তামিলনাডুর জামাই বলা হয় কেন? লিখছেন রামকৃষ্ণ মিশনের স্বামী অলোকেশানন্দ

img

প্রতীকী ছবি।

  2023-09-06 15:49:33

স্বামী অলোকেশানন্দ

বিয়ের পর দেবসেনার সঙ্গে কৈলাসে বাস করছিলেন কার্তিক। কিন্তু মাঝে মাঝে ভাই গণেশের সঙ্গে একটু আধটু তর্ক-বিতর্ক ও বাদ-প্রতিবাদের মধ্যে পড়তে হত। এরকমই একদিন তর্ক-বিতর্কে দুই ভাইয়ের মধ্যে ঠিক হল, কে আগে সারা পৃথিবী ঘুরে এসে মা পার্বতীর থেকে পুরস্কার নিতে পারে? কার্তিক (Lord Kartikeya) শুনেই তাঁর বাহন ময়ূরকে নিয়ে পৃথিবী ঘুরতে বেরিয়ে পড়েন। ঘুরে এসে দেখেন, পার্বতী মায়ের পুরস্কার, মুক্তোর মালা নিয়ে গণেশ মায়ের কোলে বসে আছেন। কারণ মা পার্বতী হলেন বিশ্বব্রহ্মাণ্ড। তাঁকে ঘুরলেই সব ঘোরা হয়ে যায়। এই ঘটনা আমরা সকলেই জানি।

দক্ষিণ ভারতে অন্য কাহিনী (Lord Kartikeya) 

কিন্তু তামিলনাড়ুতে বা দক্ষিণ ভারতে এই বিষয়ে অন্য একটি কাহিনী শোনা যায়। যখন গণেশ ও কার্তিক তর্ক-বিতর্ক করছিলেন, সেই সময় কোথা থেকে নারদ আমের মত দেখতে একটি ফল নিয়ে উপস্থিত হলেন। দুই ভাই জানতে চাইলেন, এটা কী বস্তু? নারদ বললেন, এটা জ্ঞান ফল। খেলে বুদ্ধি বাড়বে আবার আত্মজ্ঞান বাড়বে। শুনে দু'জনেই দাবি করতে লাগলেন তাঁদের এটি দিতে হবে। বলা বাহুল্য, সেই জ্ঞান ফল নিয়ে দুই ভাইয়ের মধে তর্ক-বিতর্ক আরম্ভ হয়ে গেল। তখন নারদ বললেন, ঠিক আছে, যে সবার আগে ত্রিভুবন ঘুরে আসতে পারবে, তাকে এই ফলটা দেব। শুনেই কার্তিক (Lord Kartikeya) রাজি হয়ে তাঁর ময়ূরের পিঠে উঠে বেরিয়ে পড়লেন ত্রিভুবন ঘুরতে। গণেশ অনেক চিন্তাভাবনা করে মা পার্বতী ও পিতা মহাদেবকে ডেকে কাছে দাঁড় করালেন। মা ও বাবাকে জিজ্ঞাসা করলেন, তোমরা ত্রিভুবন পতি? তাঁরা বললেন, হ্যাঁ। ব্যাস, গণেশ তাঁর ইদুরের পিঠে চেপে মা-বাবাকে একসঙ্গে দাঁড় করিয়ে তিন পাক ঘুরে নিলেন। এই ঘটনা নারদের সামনেই হল। তাই নারদ ফলটি গণেশকেই দিয়ে দিলেন। এরপর যখন কার্তিক ত্রিভুবন ঘুরে এলেন, দেখলেন যে ফলটি গণেশের হাতে। কার্তিক জিজ্ঞাসা করাতে বললেন, মা ও বাবা ত্রিভুবন পতি। তাঁদেরই তিন পাক ঘুরে ত্রিভুবন ঘুরে নিলাম। এই না দেখে ও শুনে খুব অভিমান সহকারে স্ত্রী দেবসেনা ও বাহন ময়ূরকে নিয়ে কার্তিক ঘুরতে ঘুরতে চলে আসেন দক্ষিণ ভারতে তামিলনাড়ুর পালানিতে।

কার্তিক (Lord Kartikeya) এখানে ছয়টি জায়গায় থাকতেন

দক্ষিণ ভারতের তামিল রাজ্য কার্তিকের (Lord Kartikeya) বাসস্থান। কার্তিক এখানে ছয়টি জায়গায় থাকতেন বা আছেন বলে দক্ষিণ ভারতের মানুষ বিশ্বাস করেন। এই ছয়টি হল ১) স্বামীমালাই মুরুগান্‌ মন্দির  ২) পালানী মুরুগান্‌ মন্দির ৩) থিরুচেন্দুর মুরুগান্‌ মন্দির ৪) থিরুপ্‌পারান্‌কুন্ড্রাম্‌ মুরুগান্‌ মন্দির ৫) থিরুথানি মুরুগান্‌ মন্দির ও ৬) পাঝামুদিরচোলাই মুরুগান্‌ মন্দির। কার্তিকের দু'জন স্ত্রী বল্‌লী ও দৈবানৈ (দেবসেনা)। দেবসেনার সঙ্গে আগেই বিয়ে হয়েছেল। কিন্তু  ঘুরতে ঘুরতে যখন পাঝামুদিরচোলাই এলেন, জায়গাটা ট্রাইবাল এরিয়া ছিল। সেখানকার উপজাতি লোকেরা তাঁকে মুরুগন্‌ বলে শ্রদ্ধা জানায়, আদর-আপ্যায়ন শুরু করে। তাকে খুব শ্রদ্ধা ও ভালবাসে। 
একদিন সেখানে স্থানীয় উপজাতি রাজার মেয়ে, যার গায়ের রঙ কালো, সেই বল্‌লীকে দেখে তাঁর রূপে আকৃষ্ট হন কার্তিক। কিন্তু কার্তিক কয়েক বার চেষ্টা করেও বল্‌লীর মন জয় করতে না পেরে ভাই গণেশকে ডেকে সব বলেন। গণেশ তখন হাতির রূপ ধরে বল্‌লীর কাছে যান। তখন সেখানে বৃদ্ধর রূপ ধরে কার্তিকও হাজির হয়ে যান। সামনে হাতি দেখে ভয়ে চোখ বুজে বল্‌লী বৃদ্ধরূপী কার্তিককে জড়িয়ে ধরে। কার্তিক বলেন, হাতি আমি তাড়িয়ে দেবো, কিন্তু আমাকে বিয়ে করতে হবে। তাতে বললী রাজি হয়। তারপর চোখ খুলে দেখে, হাতি চলে গেছে, সামনে সুদর্শন যুবক কার্তিক। তারপর বিয়ে হয় তার সাথে।

কেন কার্তিকের (Lord Kartikeya) মন্দিরের কাছাকাছি শিবের মন্দির?

সেই থেকে কার্তিক (Lord Kartikeya) এখানেই আছেন। বিবাহ করেছেন এখানে, লোকে তাই বলে তামিলনাডুর জামাই। তামিল রাজ্যে শিব ও কার্তিকের ভক্ত বেশি। তবে বর্তমানে শিবের থেকে মুরুগন অর্থাৎ কার্তিকের প্রভাব বেশি। কার্তিকের মন্দিরের কাছাকাছি শিবের মন্দির দেখা যায়। কারণ কার্তিক যখন তামিলনাডু চলে আসেন, তখন শিব ও পার্বতী তাঁকে এখানে নিতে আসেন। কিন্তু তামিলনাডুর লোকেরা এত ভালোবাসা, আদর-আপ্যায়ন করে রেখেছেন, যে কার্তিক এখান থেকে যেতে চাইলেন না। শিব তখন বললেন, কার্তিক না গেলে আমিও যাবো না। এরপর শিব কার্তিককে নিয়ে এখানে রয়ে গেলেন, আর পার্বতী গণেশকে নিয়ে কৈলাসে বাস করতে লাগলেন। দক্ষিণ ভারতে কার্তিকের মন্দিরের কাছাকাছি শিবের মন্দির দেখা যায় এই কারণেই।

 

দেশের খবরদশের খবরসব খবরসবার আগে পেতে ফলো করুন আমাদের FacebookTwitter এবং Google News পেজ।

Tags:

Madhyom

bangla news

Bengali news

Lord Shiva and Goddess Parvati

Lord Kartikeya

kartik


আরও খবর


খবরের মুভি